গ্রীষ্মকালীন সবজি কাঁকরোলকে স্বর্গীয় ফল বলা হয়। কারণ এতে রয়েছে ক্যান্সার প্রতিরোধী উপাদানসহ দারুণ সব পুষ্টিগণ যা জটিল জটিল অনেক রোগের ঝুঁকি কমিয়ে দেয়।

কাঁকরোলে ক্যালসিয়াম, লৌহ, ফসফরাস, ক্যারোটিন, আমিষ, ভিটামিন-বি, শ্বেতসার ও খনিজ পদার্থ উল্লেখযোগ্য পরিমাণে রয়েছে৷ টমেটোর চেয়ে ৭০ গুণ বেশি লাইকোপিন থাকে কাঁকরোলে, গাজরের চেয়ে ২০ গুণ বেশি বিটা ক্যারোটিন, কমলার চেয়ে ৪০ গুণ বেশি ভিটামিন সি থাকে এবং ভুট্টার চেয়ে ৪০ গুণ বেশি জিয়াজেন্থিন রয়েছে ছোট্ট এ সবজিটিতে।

আসুন জেনে নেই অনেক উপকারের মধ্য থেকে কাঁকরোলের প্রধান ১০টি উপকারিতা।

ক্যান্সার প্রতিরোধ করে
কাঁকরোলের পুষ্টি উপাদান ক্যান্সার প্রতিরোধে সাহায্য করে এবং ক্যান্সার কোষের সংখ্যা বৃদ্ধিকে ধীর গতির করতে পারে। এতে নির্দিষ্ট একটি প্রোটিন থাকে, যা ক্যান্সার কোষের বৃদ্ধিকে প্রতিহত করতে পারে। এজন্যই কাঁকরোলকে ‘স্বর্গীয় ফল’ আখ্যা দেওয়া হয়।

অ্যানেমিয়া প্রতিহত করে
কাঁকরোলে প্রচুর আয়রন থাকার পাশাপাশি ভিটামিন সি ও ফলিক এসিড ও থাকে। এ কারণে নিয়মিত এটি খেলে অ্যানেমিয়ার প্রতিহত করা সম্ভব হয়।

কোলেস্টেরলের মাত্রা কমায়
যাদের কোলেস্টেরলের মাত্রা বেশি বা যাদের উচ্চমাত্রার কোলেস্টেরলের রয়েছে তাদের নিশ্চিন্তে কাঁকরোল খেতে পারেন। এটি উচ্চমাত্রার কোলেস্টেরলের মাত্রা কমাতে সাহায্য করে।

হৃদরোগ প্রতিরোধক
যেহেতু কাঁকরোলে উচ্চমাত্রার অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট থাকে তাই এটি হৃদরোগ প্রতিরোধে সাহায্য করে।

দৃষ্টিশক্তির উন্নতি ঘটায়
কাঁকরোলে চোখের স্বাস্থ্যের জন্য উপকারী ভিটামিন, বিটাক্যারোটিন ও অন্যান্য উপাদান থাকে, যা দৃষ্টিশক্তির উন্নতিতে সাহায্য করার পাশাপাশি চোখের ছানি প্রতিরোধেও সাহায্য করে।

বিষণ্ণতা প্রতিহত করে
কাঁকরোলে সেলেনিয়াম, মিনারেল এবং ভিটামিন থাকে, যা নার্ভাস সিস্টেমের উপর গুরুত্বপূর্ণ প্রভাব রাখে। তাই বিষণ্ণতার বিরুদ্ধে যুদ্ধ করতে সাহায্য করে কাঁকরোল।

তারুণ্য ধরে রাখে
কোষের কার্যক্রমকে উদ্দীপিত করার মাধ্যমে এবং স্ট্রেস কমানোর মাধ্যমে বয়স বৃদ্ধির প্রক্রিয়াকে ধীর গতির করতে সাহায্য করে কাঁকরোল। কোলাজেনের গঠনকে পুনর্নির্মাণের মাধ্যমে বয়সের ছাপ প্রতিরোধেও ভূমিকা রাখে এটি।

মেদ কমাতে কাঁকরোল
কমলার চেয়ে শতকরা ৪০ ভাগ বেশি ভিটামিন সি রয়েছে কাঁকরোলে। ভিটামিন সি শরীরের অতিরিক্ত মেদ পুড়িয়ে ফেলতে সাহায্য করে।

ত্বকের যত্নে কাঁকরোল
কাঁকরোলে আছে ভুট্টার চেয়ে শতকরা ৪০ ভাগ বেশি জিযানথেন এবং গাজরের চেয়ে শতকরা ২০ ভাগ বেশি বিটা ক্যারোটিন, আছে ভিটামিন ই। এগুলো আপনার ত্বককে দূষণ থেকে রক্ষা করে।

কিডনির পাথর নিমূল করে
কিডনির পাথর নির্মূলে দুধের সঙ্গে কাঁকরোল বাটা উপকারী। কাঁকরোল খেলে উচ্চ রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে থাকে।

অতএব স্বগীয় ফল বলে পরিচিত এ সবজিটি কেন খাবেন না? নিয়মিত খান এ সবজি। থাকুন সুস্থ ও সুন্দর।